বাংলাদেশের-সমুদ্র-সৈকতের-তালিকা

বাংলাদেশের সমুদ্র সৈকতের তালিকা

বাংলাদেশে পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত যার দৈর্ঘ্য ১৫৬ কিমি । এছাড়াও আরও কয়েকটি সমুদ্র সৈকত বাংলাদেশে রয়েছে । সবকটি সমুদ্র সৈকত সম্পর্কে নিচে আলোচনা করা হলো যেগুলো পড়ে বেড়াতে গেলে প্রস্তুতি ভাল থাকবে । বাংলাদেশের সমুদ্র সৈকতের তালিকা  নিচে আলোচনা করা হলো:

১) কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত/সিবিচ :

এটি কক্সবাজার জেলায় অবস্থিত । এটির অন্য আরেকটি নাম হল- লাবনি পয়েন্ট । কক্সবাজারকে বাংলাদেশের ট্যুরিস্ট রাজধানী বলা হয় । কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত পৃথিবীর অন্যতম আকর্ষনীয় একটি সমুদ্র সৈকত ।

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত ঘুরতে যাওয়ার আগে দেখে নিন বিস্তারিত

 

২) ইনানী বিচ (Inani Beach) :

ইনানী বিচটি কক্সবাজার জেলায় উকিহিয়া/উহিয়া থানায় অবস্থিত যা কক্সবাজার থেকে ৩৫ কিমি দক্ষিনে অবস্থান ও ইনানী সিবিচের পূর্ব দিকে পাহাড় । ইনানী সিবিচের পানি নীল । ইনানী সমুদ্র সৈকতটি সমুদ্র গোসল করার জন্য অত্যন্ত আকর্শনীয় ।

 

৩) সেন্টমার্টিন সিবিচ (Saint Martin Beach) :

সেন্টমার্টিন সিবিচটিও কক্সবাজার জেলায় টেকনাফে অবস্থিত । এটি টেকনাফে পড়লেও, টেকনাফ থেকে ৪৮ কিমি দূরে অবস্থিত এবং কক্সবাজার থেকে ১১৫ কিমি । সেন্টমার্টিন বাংলাদেশের একমাত্র কোরাল দ্বীপ । কক্সবাজার সদর থেকে প্রথমে টেকনাফে যেতে হবে । এরপর স্টিমার/লঞ্চ দিয়ে যেতে হবে এই সেন্টমার্টিন সমুদ্র সৈকতে । সেন্টমার্টিন দ্বীপটি চারপাশে সমুদ্র বেষ্টিত । এই দ্বীপটিতে রয়েছে অনেক নারিকেল গাছ ও এটি শুটকির জন্য বিখ্যাত ।

 

৪) পতেঙ্গা সিবিচ (Patenga Beach) :

পতেঙ্গা সিবিচ বাংলাদেশের চট্রগ্রামে অবস্থিত । এটি একটি বালুময় সিবিচ যা কর্নফুলী নদীর মোহনায় অবস্থিত । পতেঙ্গা সিবিচ টি বাংলাদেশ নেভাল একাডেমির একদম পাশেরই অবস্থিত । পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতটি বাংলাদেশের বহুল জনপ্রিয় একটি সিবিচ । এখান  থেকে সুর্যাস্ত দেখতে অনেক আকর্শনীয় লাগে ।

Patenga Beach,Chittagong, Bangladesh

 

৫) কুয়াকাটা সিবিচ (Kuakata Beach) :

বাংলাদেশের পটুয়াখালি জেলায় কুয়াকাটা সিবিচ অবস্থিত । অপরূপ সৈন্দর্যের লীলাভূমি সাগর কন্যা কুয়াকাটা দক্ষিন এশিয়ার একটি মাত্র সমু্দ্র সৈকত যেখানে দড়িয়ে সূর্যোদয় ও সূর্যাস্ত অবলোকন করা যায় ।কুয়াকাটাতে সূর্যোদয় দেখার জন্য ঝাউবনে যাওয়াই ভাল । এবং সেখান থেকেই সূর্যাস্ত দেখা যায় । কুয়াকাটায় রয়েছে রাখাইন পল্লী যা রাখাইনদের স্থাপত্য নিদর্শন । সমুদ্র সৈকতের একবারে কোল ঘেষে রয়েছে ইকোপার্ক ও জাতীয় উদ্যান ।

kuakata sea beach–

 

৬) নিঝুম দ্বীপ (Nijhum Dwip) :

নিঝুম দ্বীপটি নোয়াখালি জেলার হাতিয়া উপজেলায় অবস্থিত । নিঝুম দ্বীপ আয়তনে প্রায় ১৪,০৫০ একর । এর চারটি দ্বীপ রয়েছে – কমলার চর, বল্লার চর, চর ওসমান ও চর মুরি । ঢাকা থেকে বাসে নোয়াখালি যেতে ঢাকার ছায়েদাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে যেতে হবে । ট্রেনে যেতে হলে কমলাপুর থেকে নোয়াখালির মাইজদি ট্রেন থেকে নামতে হবে । ঢাকার সদরঘাট থেকে হাতিয়া হয়ে নিঝুম দ্বীপে যাওয়া যাবে জাহাজ ।

 

৭) পারকী সমুদ্র সৈকত (Parki Sea Beach)

পারকী একটি উপকূলীয় সমুদ্র সৈকত। এক সময় বাংলাদেশে সমুদ্র সৈকত বলতে শুধু কক্সবাজার এবং পতেঙ্গা সৈকতকে মনে করা হলেও বর্তমানে পর্যটদের কাছে পারকী সৈকত বেশ জনপ্রিয় হচ্ছে। পারকীর চর হিসেবে পরিচিত এ সৈকত চট্টগ্রাম জেলার আনোয়ার থানায় অবস্থিত। চট্টগ্রাম শহর থেকে এর দূরত্ব মাত্র ৩৫কিমি।

 

৮) কটকা সমুদ্র সৈকত (Kotka Sea Beach)

যদি রয়েল বেঙ্গল টাইগার দেখতে চান তবে ঘুরে আসতে পারেন কটকা থেকে। এর জন্য আপনাকে যেতে হবে বাগেরহাটের মংলা অঞ্চলের সুন্দরবনে। শান্ত সুন্দর সৈকত, চিত্রা হরিণ ছাড়াও কুমির কিংবা রয়েল বেঙ্গল টাইগারের হঠাৎ দেখা আপনার ভ্রমণের মাত্রা বাড়িয়ে দেবে নিঃসন্দেহে।

 

৯) বাঁশবাড়িয়া সমুদ্র সৈকত (Bashbaria Sea Beach)

 

১০) পুরীর সমুদ্র সৈকত (Purir Sea Beach)

 

১১) গুলিয়াখালি সমুদ্রসৈকত (Guliakhali Sea Beach)

সীতাকুণ্ড

The following two tabs change content below.
Avatar

বিডি টুর গাইড

আমি বিডি টুর গাইড টির এডমিন যে ব্লগটির মাধ্যমে বাংলাদেশ সহ বিশ্বের দর্শনীয় ও বিখ্যাত জায়গা গুলি কিভাবে ঘুরেবেন তাআমি প্রকাশ করে থাকি । আমি সুন্দর সুন্দর জায়গা গুলি ঘুরে বেড়াতে খুব পছন্দ করি এবং ঘুরে বেড়ানোর অভিজ্ঞতা ও অনুভুতি এখানে এই ব্লগের মাধ্যম পাবলিশ/ প্রকাশ করার মাধ্যমে আনন্দের পরিপুর্ণতা পায়। আপনারাও আপনাদের বাংলাদেশ সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ ঘুরে বেড়ানোর অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে পারবেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!